কেয়াফুল

কবি: যতীন্দ্র মোহন বাগচী

_ফুল চাই —– চাই কেয়াফুল  !——

_        সহসা পথের ‘পরে
_          আমার এ ভাঙ্গা ঘরে
_               কন্ঠ কার ধ্বনিল আকুল |
_
___               তখনো শ্রাবণ-সন্ধ্যা_                    নিঃশেষে হয়নি বন্ধ্যা—–_                           থেকে থেকে ঝরিতেছে জল ;_               পবন উঠিছে জেগে,_                     বিজলী ঝলিছে বেগে——_                            মেঘে মেঘে বাজিছে মাদল |____জনহীন ক্ষুব্ধ পথ_     জাগিছে দুঃস্বপ্নবৎ—-_            বুকে চাপি’ আর্ত্ত অন্ধকার ;_কোনমতে কাজ সারি’_      যে যার ফিরিছে বাড়ী,_            ঘরে ঘরে বন্ধ যত দ্বার|___               শূন্য ঘরে_        হিয়া গুমরিয়া মরে_               স্মরি’ যত জীবনের ভুল ;_অকস্মাৎ তারি মাঝে_      ধ্বনি কার কানে বাজে—–_             চাই ফুল—-চাই কেয়াফুল !___                  পাগল !   আজি এ রাতে_                        এ দুর্য্যোগ-অভিঘাতে—-_                             বৃষ্টিপাতে বিলুপ্ত মেদিনী ;_                   তার মাঝে কে আছে,_                        কেতকী-সৌরভ যাচে !_                                কোথায় বা হবে বিকিকিনি ?_পবন উঠিছে মাতি !_      কিছুক্ষণ কান পাতি’_           মনে হ’ল গিয়াছে বালাই ;_সহসা আমারি দ্বারে_     ডাক এল একেবারে—-_          চাই ফুল — কেয়াফুল চাই !____                ভাবিলাম মনে মনে—–_                       হয়ত বা এ জীবনে_                           কোনোদিন কিনেছিনু ফুল ;_                  সেই কথা মনে ক’রে_                       আজো বা আশায় ঘোরে ;_                              কিম্বা কারে করিয়াছে ভুল !____তাড়াতাড়ি আলো তুলি’_       বাহিরিনু দ্বার খুলি,_              সবিস্ময়ে দেখিলাম চেয়ে—-_মাথায় বৃহৎ ডালা,_      দাঁড়ায়ে পসারী-বালা—–_           শ্রাবণ ঝরিছে অঙ্গ বেয়ে ;___            কহিলাম, এ কি কান্ড !_                   তোমার পসরাভান্ড_                        আজ রাতে কে কিনিবে আর ?_            এ প্রলয়ে কারো কাছে_                   কিছু কি প্রত্যাশা আছে—–_                        কেন মিছে বহিছ এ ভার !___আর্দ্র দেহে আর্দ্র বাসে_       সে কহিল মৃদু হাসে,—–_            শিরে বায়ু সুগন্ধ ছড়ায়—-_যে ফুল বেসাতি করি,_     বাদল যে শিরে ধরি,—–_            কপালে লিখিল বিধি তাই !___                    বহিয়া দুখের ঋণ_                 যে কষ্টে কাটাই দিন—–_                           এ দুর্দ্দিন কিবা তার কাছে ?_             —— ওগো তুমি নেবে কিছু ?_                       নয়ন হইল নীচু—-_                             সেথাও বা মেঘ নামিয়াছে !___খোলা দরজার পাশে_      বায়ু গরজিয়া আসে,_           ফুলবাসে ভরি দেহ-মন ;_ঝর-ঝর  ঝরে জল,_     আঁখি করে ছল-ছল_          ঘনাইয়া প্রাণের শ্রাবণ !___                      বাদলের বিহ্বলতা—-_                        বুঝি হায় !   লাগিল তা’_                                নয়নে বচনে সর্ব্ব দেহে ;_                        সহসা চাহিয়া আড়_                         রমণী ফিরাল ঘাড়—–_                                উর্দ্ধে যেন কি দেখিবে চেয়ে !____না কহিয়া কোন বাণী_      পসরা লইনু টানি’—–_           মূল্য তার হাতে দিনু যবে,_উজার করিতে ডালা_      কাঁদিয়া ফেলিল  বালা——_            ওমা এ কি —- এত কেন হবে ?___                        কহিনু —যা’ কিনিলাম,_                               এ নহে তাহারি দাম—–_                                    প্রতিদিন দিতে হবে মোরে ;_                         এক পণ দুই পণ—-_                                  যেদিন যেমন মন,_                                          তাহারি আগাম দিনু তোরে ;___কতক বুঝে’  না-বুঝে’_       হৃদয়ের ভাষা খুঁজে’_              বহুকষ্টে জানাইয়া তাই,_পুষ্পগন্ধে মোরে ঘিরে’_       অন্ধকারে ধীরে-ধীরে_                পসারিনী লইল বিদায় |___                           ফিরিনু একলা ঘরে—–_                                বাদল তখনো ঝরে,_                                      পুষ্পগন্ধে পূর্ণ গৃহতল ;_                            শয্যা লইলাম পাতি’_                                নিবায়ে দিলাম বাতি—-_                                        আবার আসিল বেগে জল !____রুদ্ধ জানালার ফাঁকে_       বাতাস কাহারে ডাকে,_              বিজলী চমকি’ কারে চায় !_কোন্ অন্ধ অনুরাগে_        ত্রিযামা যামিনী জাগে_              শ্রাবণ ব্যাকুল-ব্যর্থতায় !___                                সঙ্গীহীন শূন্য ঘরে_                                        হিয়া গুমরিয়া মরে—-_                                                 স্মরিয়া এ জীবনের ভুল ;_                                 সেই সাথে থেকে- থেকে_                                        মনে হয় — গেল ডেকে’_                                                কাননের যত কেয়াফুল !



Facebook Commnet

Bengali Clicker @ Facebook